মায়ের পক্ষ নেয়ায় ছেলেকে কোপালেন বাবা

মায়ের পক্ষ নেয়ায় নিজের ছেলেকে কুপিয়ে হত্যা করার চেষ্টা করেছে এক পাষণ্ড বাবা। অভিযুক্ত ওই বাবার নাম রিপন মিয়া। আহত ছেলের নাম পলাশ মিয়া।

ঘটনাটি ঘটেছে ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার মাওহা ইউপির কড়মরিয়া গ্রামে গত ৮ জুন রাতে।

ঘটনার দিন রাতে কৌশলে পলাশকে কড়মরিয়া বিলের পাশে ডেকে নিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে মৃত ভেবে ফেলে রেখে যায় রিপন মিয়া। পলাশ বর্তমানে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এ ঘটনায় পলাশের মা জাহানারা বেগম বাদী হয়ে রিপন মিয়াকে আসামি করে গৌরীপুর থানায় মামলা করেছেন।

সন্তানের ওপর বাবার এ ন্যাক্কারজনক হামলার ঘটনাটি প্রথম দিকে চাপা থাকলেও সম্প্রতি বিষয়টি প্রকাশ্যে এলে এলাকায় বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, ২২ বছর আগে নেত্রকোনার মদন উপজেলার খাগড়িয়া গ্রামের আব্দুল গফুরের ছেলে রিপন মিয়ার সঙ্গে বিয়ে গৌরীপুর উপজেলার মাওহা ইউপির কড়মরিয়া গ্রামের মোসলেম উদ্দিনের মেয়ে জাহানারা বেগমের।

দাম্পত্য জীবনে তাদের পলাশ মিয়া ও বিউটি নামে দুটি সন্তান রয়েছে। ছয় মাস আগে রিপন মিয়া দ্বিতীয় বিয়ে করলে প্রথম স্ত্রী জাহানারা ও তার সন্তানদের সঙ্গে তার সম্পর্কের অবনতি হয়।

চার মাস আগে জাহানারা তার স্বামী রিপনকে আদালতের মাধ্যমে তালাকনামা পাঠায়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে রিপন গত ৮ জুন রাতে কৌশলে পলাশকে কড়মরিয়া বিলের পাশে ডেকে নিয়ে কুপিয়ে আহত করে ফেলে রেখে যায়। খবর পেয়ে পরিবারের লোকজন পলাশকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে চিকিৎসক তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে।

জাহানারা বেগম বলেন, আমার স্বামী দ্বিতীয় বিয়ে করার পর মনোমালিন্য হলে পলাশ সবসময় আমার পক্ষে কথা বলতো। তাই প্রতিশোধ নিতে পলাশের ওপর হামলা করেছে ওর বাবা। আমি এর বিচার চাই।

আহত পলাশ বলেন, ভাগ্যগুণে বেঁচে গেছি। আমার এখনো বিশ্বাস হয়না বাবা আমার ওপর হামলা করেছে। আমাকে মেরে ফেলতে চেয়েছে। রিপন মিয়া আমার বাবা না, ও একটা সন্ত্রাসী। খবরঃ ডেইলি বাংলাদেশ ডট কম 

গৌরীপুর থানার ওসি (তদন্ত) গোলাম মাওলা বলেন, পলাশের ওপর হামলার ঘটনায় তার মা জাহানারা বেগম বাদী হয়ে মামলা করেছেন। অভিযুক্ত রিপন মিয়া পলাতক রয়েছে। পুলিশ তাকে গ্রেফতার করার চেষ্টা চালাচ্ছে।

Related Posts

Add Comment