খালেদা জিয়ার ব্যাপারটার জন্য ক্ষমা চাইলেন শিশু নাঈমের মা

বনানী অগ্নিকাণ্ডে পানির পাইপ ধরে আলোচনায় আসা শিশু নাঈম ইসলাম অভিনেতা শাহরিয়ার নাজিম জয়ের সাক্ষাৎকার অনুষ্ঠানে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে যে কথা বলেছিল, সে জন্য দুঃখ প্রকাশ করে ক্ষমা চেয়েছেন তার মা নাজমা বেগম।

তিনি বলেন, তিনি তার ছেলের (নাঈম) দেয়া বক্তব্যকে ভুল হয়েছে বলে মনে করছেন। তবে এই কথাটি শিশু নাঈমকে শিখিয়ে দেয়া হয়েছিল কিনা, সে বিষয়ে স্পষ্টভাবে কিছুই বলছেন না নাজমা বেগম।

মঙ্গলবার বিকালে নাঈমের মা নাজমা বেগম গণমাধ্যমকে বলেন, দয়া করে খালেদা জিয়ার ব্যাপারটার জন্য আমি ক্ষমা চাচ্ছি, সেটি একটু প্রচার করেন আপনারা। ওই নেত্রীর (খালেদা জিয়া) কাছে আমি আমার ছেলের জন্য ক্ষমা চাচ্ছি। আমার স্বামী আমাদের সঙ্গে থাকেন না। আমি আমার ছেলে ও ছোট একটা মেয়েকে নিয়ে অনেক কষ্টে জীবন চালাই। আমি বাসাবাড়িতে কাজ করে খাই। আমি চাই না, আমার ছেলে কোনো বিপদে পড়ুক।

তিনি বলেন, আমি প্রথমের দিক ছিলাম না। যখন শাহরিয়ার নাজিম জয় নাঈমকে বাসা থেকে তার স্টুডিওতে নিয়ে যায়, তখন আমি ছিলাম না। নাঈমকে একাই নিয়ে গিয়েছিল। আমি এর দেড় ঘণ্টা পর সেখানে গেছি। তাই নিয়ে যাইয়া যে নাঈমকে কিছু শিখাইছে কি শিখায় নাই, সেটা আমি জানি না।

ছেলের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করে তিনি বলেন, আমি বলি- ও (নাঈম) একটা ছোট মানুষ। আমি কারও দোষ দিব না। আমি ক্ষমা প্রার্থনা করছি, এই কথাটার (খালেদা জিয়ার এতিমখানার টাকা আত্মসাৎ প্রসঙ্গ) কারণে। আমি তো আর বলতে বলি নাই। আমার ছেলে বুঝেও বলে নাই।

নাজমা বেগম আরও বলেন, এ ঘটনার পর শাহরিয়ার নাজিম জয় আমাদের সঙ্গে আর কোনো যোগাযোগ করে নাই। ওই দিন ইন্টারভিউয়ের সময় শাহরিয়ার নাজিম জয় আমার ছেলের হাতে একটা খাম দিয়েছিল। আমি পরে বাসায় এসে খুলে দেখি দুই হাজার টাকা।

প্রসঙ্গত সম্প্রতি বনানী অগ্নিকাণ্ডে পানির পাইপ চেপে আলোচনায় আসে শিশু নাঈম ইসলাম। তার এমন কাজে খুশি হয়ে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী এক বাংলাদেশি তাকে পাঁচ হাজার ডলার পুরস্কার ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় আলোচনায় আসার পর টিভি উপস্থাপক ও অভিনেতা শাহরিয়ার নাজিম জয় শিশু নাঈমের সাক্ষাৎকার নেন।

নাঈম পুরস্কারের সেই টাকাগুলো নেবে কিনা? আর নিলেও সেই টাকা কিসে খরচ করবে? এমন প্রশ্ন করেন উপস্থাপক জয়।

জবাবে নাঈম জানায়, সেই টাকাগুলো সে এতিমখানার অনাথ শিশুদের জন্য দান করে দিতে চায়।

একপর্যায়ে এতিমখানায় কেন টাকা দিতে চায় জয়ের এমন প্রশ্নের উত্তরে নাঈম বলে, কিছু বছর আগে খালেদা জিয়া এতিমের টাকা লুট করে খেয়েছে, তাই এ টাকা তিনি এতিমদের দিতে চান।

এ ঘটনার পর তীব্র সমালোনার মুখে পড়েন শাহরিয়ার নাজিম জয়। নাঈমকে জয়ের এ ধরনের প্রশ্ন করাটাকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত উল্লেখ করেন ফেসবুক ব্যবহাকারীরা।

তারা বলেন, ওই শিশুটি নিজ থেকে এসব কথা বলেনি। উপস্থাপক জয় শিশু নাঈমকে কথাগুলো শিখিয়ে দিয়েছেন। অনুষ্ঠানে শিশুটির কথা বলার ধরনেই তা স্পষ্ট।

এরপর শিশু নাঈমের কথার সত্যতা যাচাইয়ে তার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করেন গণমাধ্যমকর্মী ও কণ্ঠশিল্পী আমিরুল মোমিনিন মানিক। তার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

সেই ভিডিওতে আমিরুল মোমিনিন মানিক শিশু নাঈমকে জিজ্ঞেস করেন, ‘তোমার মা কষ্ট করে সংসার চালাচ্ছেন, তোমার পড়াশোনার খরচ বহন করছেন, তোমার নিজেরই টাকা দরকার, তা হলে তুমি কেন সে টাকা নিজে না রেখে এতিমদের দিয়ে দিতে চাও? এটা কী তোমার মনের কথা?’

নাঈমের সোজাসাপ্টা জবাব- ‘না, এটা বলতে তারা শিখিয়ে দিয়েছিল।’

এর পর প্রশ্নকর্তা বলেন, ‘যিনি তোমাকে টাকা দিতে চেয়েছিলেন তিনি এখন বলেছেন আর টাকা দেবেন না। তুমি কী টাকাটা চাও?’

নাঈমের জবাব, ‘আমি ওই কথা না বুঝে বলেছি, আমি টাকা চাই, আমার পড়াশোনার জন্য টাকা চাই।’

একই প্রশ্ন করা হয় নাঈমের মাকে। তিনি বলেন, ‘নাঈম ছোট মানুষ, তাই না বুঝে এসব বলেছে। আমি গরিব মানুষ, টাকাটা আমারই দরকার। সে টাকা অন্যদের দিয়ে দিলে আমার নাঈমকে আমি কীভাবে মানুষ করব!’

তবে ওই সাক্ষাতকার অনুষ্ঠানে শিশু নাঈমকে কোনো কথা শিখিয়ে দেননি বলে দাবি করেছেন অভিনেতা জয়।

Related Posts

Add Comment